Menu |||

রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের মানবিক ভূমিকার প্রশংসা করেন সুষমা

IMG_20171023_122542-900x500

অনলাইন ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎকালে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের মানবিক ভূমিকার প্রশংসা করেন। তিনি তখন বলেন, ‘সন্ত্রাস দমন অভিযানে মিয়ানমার নিরীহ মানুষকে শাস্তি দিতে পারে না। মিয়ানমারকে অবশ্যই তাদের বিপুলসংখ্যক নাগরিককে ফেরত নিতে হবে।’

রবিবার (২২ অক্টোবর) গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে বসেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। এরপর সুষমা স্বরাজের উদ্ধৃতি দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের বলেন, ‘মিয়ানমার সন্ত্রাসীদের শাস্তি দিতে পারে, নিরীহ মানুষকে নয়।’

দুই দেশের যৌথ পরামর্শ কমিশনের (জেসিসি) বৈঠকে যোগ দিতে রবিবার দুই দিনের ঢাকা সফরে এসেছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি মনে করেন, রোহিঙ্গাদের আগমন বাংলাদেশের জন্য একটি বিরাট বোঝা। তার ভাষ্য,‘যারা দুস্কৃতিকারী ও সন্ত্রাসী তাদের শাস্তি দিতে পারে মিয়ানমার। কিন্তু সাধারণ জনগণ কেন এর ভুক্তভোগী হবে?’

রাখাইনের সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসারও আহ্বান জানান সুষমা স্বরাজ। ভারত রোহিঙ্গা সমস্যার স্থায়ী সমাধান চায় বলে জানান তিনি। তার কথায়, ‘ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেদ্র মোদি মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চিকে বলেছেন— আন্তর্জাতিক অঙ্গনে আপনার (সু চি) যে ভাবমূর্তি আছে, সেটি ধ্বংস করবেন না।’

মিয়ানমার থেকে ২৫ আগস্টের পর শরণার্থীদের আগমন ও তাদের সার্বিক অবস্থা ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি তখন বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের মানবিক কারণে আশ্রয় দিয়েছি। মিয়ানমারের সঙ্গে আমাদের কূটনৈতিক যোগাযোগ রয়েছে। আমাদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আগামীকাল (সোমবার) মিয়ানমার যাচ্ছেন।’

এ সময় মুক্তিযুদ্ধে ভারতের অবদান কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করেন প্রধানমন্ত্রী। এছাড়া ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পরবর্তী সময়ে দুই বোন শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানার পাশে ভারতের দাঁড়ানোর কথাও শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন প্রধানমন্ত্রী।

বৈঠকে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের বতর্মান অবস্থা নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বিষয়াবলী নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে বলেও শেখ হাসিনার কাছে উল্লেখ করেন তিনি। এর মধ্যে রয়েছে লাইন অব ক্রেডিট (এলওসি) নিয়ে বাস্তবায়ন হওয়ার কথা প্রকল্পগুলোর দেরি প্রসঙ্গ।

পরে শেখ হাসিনার হাতে মুক্তিযুদ্ধের স্মারকচিহ্ন তুলে দেন সুষমা স্বরাজ। ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর আত্মসমর্পণের দলিলের মূল কপি এবং মুক্তিযুদ্ধে ব্যবহৃত ৩৮ ইঞ্চি সার্ভিস রিভলভার প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন তিনি।

বৈঠকের শুরুতে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ প্রধানমন্ত্রীর কাছে জাতীয় জাদুঘরের জন্য একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন ধরনের ঐতিহাসিক স্মারক ও দলিল হস্তান্তর করেন। এর মধ্যে রয়েছে— একটি এমআই ফোর হেলিকপ্টার, দুটি পিটি ৭৬ ট্যাংক, ২৫টি সমরাস্ত্র।

এছাড়াও আছে অরিজিন্যাল সারেন্ডার সার্টিফিকেটের কালার কপি, রিফিউজি রিলিফের অরিজিন্যাল পোস্টাল স্ট্যাম্প, অরিজিন্যাল রিফিউজি রিলিফের পোস্টাল স্টেশনারি, মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশে বিতরণের জন্য বিমান থেকে ফেলা লিফলেট, ইন্ডিয়ান আর্মি ইউনিটের ওয়ার ডায়েরির কপি, ইন্ডিয়ান আর্মির অ্যাকশন রিপোর্টের কপি, যুদ্ধকালীন মানচিত্রের সফট ও হার্ড কপি, আর্কাইভাল অডিও ক্লিপিংস ও রেকর্ডিংয়ের কপি, যুদ্ধের আলোকচিত্র, বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ সম্পর্কিত প্রামাণ্যচিত্র, ইন্ডিয়ান আর্মির যুদ্ধের ভিডিও ক্লিপিংস, বই, যুদ্ধকালীন ভারতীয় সংবাদপত্রের কপি, জেলা ওয়ারি রিফিউজি ক্যাম্পের তালিকা প্রভৃতি।

বৈঠকে অন্যান্যের মধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী, প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী, ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী, মুখ্য সচিব ড. কামাল আব্দুল নাসের চৌধুরী ও পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক উপস্থিত ছিলেন। এ সময় ভারতের পক্ষে ছিলেন দেশটির পররাষ্ট্র সচিব ড. জয় শংকর ও বাংলাদেশে ভারতের হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রীংলা।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» সৌদি আরব পশ্চিমাঞ্চল বিএনপির সংবাদ সম্মেলন

» জেরুজালেমকে ফিলিস্তিনের রাজধানী হিসেবে ঘোষণা করেছে ওআইসি

» প্রবাসীদের জীবনের গল্প।

» সিনেমা নির্মাণ হবে সৌদি আরবে

» বেঙ্গল উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত: রেজিস্ট্রেশন শুরু ১৮ ডিসেম্বর

» ‘থার্টি ফার্স্টে বৈধ অস্ত্র বহন নিষিদ্ধ’

» শেখ হাসিনার দর্শনেই শহর থেকে গ্রামে ইন্টারনেট : পলক

» ডাবল সেঞ্চুরির হ্যাটট্রিক : বিশ্ব রেকর্ড রোহিতের

» সেলফি তুলতে গিয়ে মৃত্যু

» নির্বাচনের ট্রেন কারো জন্য থেমে থাকবে না : ওবায়দুল কাদের



logo copy

Editor-In-Chief & Agrodristi Group’s Director : A.H. Jubed

Legal Adviser : Advocate S.M. Musharrof Hussain Setu (Supreme Court of Bangladesh)

Editor-in-Chief at Health Affairs : Dr. Farhana Mobin (Square Hospital Dhaka)

Editor Dhaka Desk : Mohammad Saiyedul Islam

Editor of Social Welfare : Ruksana Islam (Runa)

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের মানবিক ভূমিকার প্রশংসা করেন সুষমা

IMG_20171023_122542-900x500

অনলাইন ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎকালে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের মানবিক ভূমিকার প্রশংসা করেন। তিনি তখন বলেন, ‘সন্ত্রাস দমন অভিযানে মিয়ানমার নিরীহ মানুষকে শাস্তি দিতে পারে না। মিয়ানমারকে অবশ্যই তাদের বিপুলসংখ্যক নাগরিককে ফেরত নিতে হবে।’

রবিবার (২২ অক্টোবর) গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে বসেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। এরপর সুষমা স্বরাজের উদ্ধৃতি দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের বলেন, ‘মিয়ানমার সন্ত্রাসীদের শাস্তি দিতে পারে, নিরীহ মানুষকে নয়।’

দুই দেশের যৌথ পরামর্শ কমিশনের (জেসিসি) বৈঠকে যোগ দিতে রবিবার দুই দিনের ঢাকা সফরে এসেছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি মনে করেন, রোহিঙ্গাদের আগমন বাংলাদেশের জন্য একটি বিরাট বোঝা। তার ভাষ্য,‘যারা দুস্কৃতিকারী ও সন্ত্রাসী তাদের শাস্তি দিতে পারে মিয়ানমার। কিন্তু সাধারণ জনগণ কেন এর ভুক্তভোগী হবে?’

রাখাইনের সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসারও আহ্বান জানান সুষমা স্বরাজ। ভারত রোহিঙ্গা সমস্যার স্থায়ী সমাধান চায় বলে জানান তিনি। তার কথায়, ‘ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেদ্র মোদি মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চিকে বলেছেন— আন্তর্জাতিক অঙ্গনে আপনার (সু চি) যে ভাবমূর্তি আছে, সেটি ধ্বংস করবেন না।’

মিয়ানমার থেকে ২৫ আগস্টের পর শরণার্থীদের আগমন ও তাদের সার্বিক অবস্থা ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি তখন বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের মানবিক কারণে আশ্রয় দিয়েছি। মিয়ানমারের সঙ্গে আমাদের কূটনৈতিক যোগাযোগ রয়েছে। আমাদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আগামীকাল (সোমবার) মিয়ানমার যাচ্ছেন।’

এ সময় মুক্তিযুদ্ধে ভারতের অবদান কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করেন প্রধানমন্ত্রী। এছাড়া ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পরবর্তী সময়ে দুই বোন শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানার পাশে ভারতের দাঁড়ানোর কথাও শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন প্রধানমন্ত্রী।

বৈঠকে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের বতর্মান অবস্থা নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বিষয়াবলী নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে বলেও শেখ হাসিনার কাছে উল্লেখ করেন তিনি। এর মধ্যে রয়েছে লাইন অব ক্রেডিট (এলওসি) নিয়ে বাস্তবায়ন হওয়ার কথা প্রকল্পগুলোর দেরি প্রসঙ্গ।

পরে শেখ হাসিনার হাতে মুক্তিযুদ্ধের স্মারকচিহ্ন তুলে দেন সুষমা স্বরাজ। ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর আত্মসমর্পণের দলিলের মূল কপি এবং মুক্তিযুদ্ধে ব্যবহৃত ৩৮ ইঞ্চি সার্ভিস রিভলভার প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন তিনি।

বৈঠকের শুরুতে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ প্রধানমন্ত্রীর কাছে জাতীয় জাদুঘরের জন্য একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন ধরনের ঐতিহাসিক স্মারক ও দলিল হস্তান্তর করেন। এর মধ্যে রয়েছে— একটি এমআই ফোর হেলিকপ্টার, দুটি পিটি ৭৬ ট্যাংক, ২৫টি সমরাস্ত্র।

এছাড়াও আছে অরিজিন্যাল সারেন্ডার সার্টিফিকেটের কালার কপি, রিফিউজি রিলিফের অরিজিন্যাল পোস্টাল স্ট্যাম্প, অরিজিন্যাল রিফিউজি রিলিফের পোস্টাল স্টেশনারি, মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশে বিতরণের জন্য বিমান থেকে ফেলা লিফলেট, ইন্ডিয়ান আর্মি ইউনিটের ওয়ার ডায়েরির কপি, ইন্ডিয়ান আর্মির অ্যাকশন রিপোর্টের কপি, যুদ্ধকালীন মানচিত্রের সফট ও হার্ড কপি, আর্কাইভাল অডিও ক্লিপিংস ও রেকর্ডিংয়ের কপি, যুদ্ধের আলোকচিত্র, বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ সম্পর্কিত প্রামাণ্যচিত্র, ইন্ডিয়ান আর্মির যুদ্ধের ভিডিও ক্লিপিংস, বই, যুদ্ধকালীন ভারতীয় সংবাদপত্রের কপি, জেলা ওয়ারি রিফিউজি ক্যাম্পের তালিকা প্রভৃতি।

বৈঠকে অন্যান্যের মধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী, প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী, ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী, মুখ্য সচিব ড. কামাল আব্দুল নাসের চৌধুরী ও পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক উপস্থিত ছিলেন। এ সময় ভারতের পক্ষে ছিলেন দেশটির পররাষ্ট্র সচিব ড. জয় শংকর ও বাংলাদেশে ভারতের হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রীংলা।

Facebook Comments


এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর





logo copy

Editor-In-Chief & Agrodristi Group’s Director : A.H. Jubed

Legal Adviser : Advocate S.M. Musharrof Hussain Setu (Supreme Court of Bangladesh)

Editor-in-Chief at Health Affairs : Dr. Farhana Mobin (Square Hospital Dhaka)

Editor Dhaka Desk : Mohammad Saiyedul Islam

Editor of Social Welfare : Ruksana Islam (Runa)

Head Office: Jeleeb al shouyoukh
Mahrall complex , Mezzanine floor, Office No: 14
Po.box No: 41260, Zip Code: 85853
KUWAIT
Phone : +965 65535272

Dhaka Office : 69/C, 6th Floor, Panthopath,
Dhaka, Bangladesh.
Phone : +8801733966556 / +8801920733632

For News :
agrodristi@gmail.com, agrodristitv@gmail.com

Design & Devaloped BY Popular-IT.Com